সৃষ্টি কলেজ অব টাঙ্গাইল

ঢাকা শিক্ষাবোর্ড অনুমোদিত, কলেজ কোড-৪৫৩৫, EIIN - ১৩০৫৯০
আবাসিক-অনাবাসিক
একাদশ থেকে দ্বাদশ শ্রেণি

সৃষ্টির সেরা সাফল্য

এইচএসসি পরীক্ষার ফলাফল
গোল্ডেন এ+/এ+: ১৪৩৬
এ গ্রেড: ৫৫৬৯
এসএসসি পরীক্ষার ফলাফল

গোল্ডেন এ+/এ+: ৫৬৩১
এ গ্রেড: ৭০৮২
বোর্ড স্ট্যান্ড : 10
স্টার মার্কস : ৫১৫

জেএসসি পরীক্ষার ফলাফল
এ+ : ৪২১৬
ট্যালেন্টপুল বৃত্তি : ৪৬৭
সাধারণ বৃত্তি: ৮৫৭
পিএসসি পরীক্ষার ফলাফল
এ+ : ২৮৭৯
ট্যালেন্টপুল বৃত্তি : ৫৮৭
সাধারণ বৃত্তি : ৫২২

সাধারণ তথ্যাবলি

চেয়ারম্যান: ড. শরিফুল ইসলাম রিপন পিএমজেএফ
আবাসিক-অনাবাসিক
একাদশ থেকে দ্বাদশ শ্রেণি
ঢাকা শিক্ষাবোর্ড অনুমোদিত, কলেজ কোড-৪৫৩৫, EIIN- ১৩০৫৯০

ক্যাডেট কলেজের ভর্তির ফলাফল
১৪৩ ক্যাডেট ভর্তি হয়েছে

অধ্যক্ষের বাণী

সৃষ্টির উচ্চ শিক্ষার উৎসমুখ – “সৃষ্টি কলেজ অব টাঙ্গাইল” দেশে অন্যতম সেরা প্রতিষ্ঠান হিসেবে প্রতিষ্ঠা লাভ করবে এই প্রত্যয়ে শুভারম্ভ করেছিলেন ২০০৩ সালে প্রতিষ্ঠাতা ড. শরিফুল ইসলাম রিপন। যা অনুমোদন লাভের ১ম বৎসরেই জেলার সবগুলো কলেজের মধ্যে ৫ম স্থান অর্জন করলো।  সেই থেকে উত্তরোত্তর প্রতিষ্ঠানটির উচ্চ মাধ্যমিক ফলাফল আরো সমৃদ্ধশালী হচ্ছে; চমকপ্রদ একটি দিক যা A+ ধারী শিক্ষার্থী ভর্তি হয় উত্তীর্ণ হয় – তার দেড়গুণ বা ততোধিক সংখ্যায়। আর এটা সম্ভব হয় একঝাঁক মেধাবী নবীন-প্রবীন শিক্ষকদের অক্লান্ত পরিশ্রমের মাধ্যমে। এখন কর্ণধার হিসেবে একটি স্বপ্ন চোখে নিয়েই এগিয়ে চলেছি দৃঢ় প্রত্যয়ে প্রতিষ্ঠাতার সাধপূর্ণ করা তথা দেশের সেরা প্রতিষ্ঠানগুলির তালিকায় স্থান লাভ করা। সেই লক্ষ্যে পৌঁছানোর জন্য পরম করুণাময় আল্লাহর অশেষ রহমত কামনার পাশাপাশি আপনাদের/দেশবাসীর দোয়া ও সানুগ্রহ সহযোগিতা আশা করছি। 

আসসালামু আলাইকুম।

কলেজের জন্ম কথা

১৯৯৩ সালের ৫ জুন টাঙ্গাইলকে শিক্ষার রাজধানী বানানোর স্বপ্ন দেখে একটি শিক্ষাসহায়ক প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে অগ্রযাত্রা শুরু করেছিলেন তৎকালীন তরুণ জ্ঞান তাপস ও আজকের শিক্ষা সংগঠক ড. শরিফুল ইসলাম রিপন ‘সৃষ্টি’ নামের প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে।  আজ তা মহীরূহে পরিণত হয়ে স্থায়ী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রূপে সৃষ্টি শিক্ষা পরিবার নামে সারা দেশে ১৫টি প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠা দিয়ে শিক্ষার দ্যুতি ছড়াচ্ছে; আর তা কলেজ পর্যন্ত এগিয়েছে। সৃষ্টির এই মহাবিদ্যালয় গঠনের প্রক্রিয়া ২০০৩ সাল থেকে শুরু হলেও দেশের রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা বিভিন্ন বাধা বিপত্তি অতিক্রম করে অবশেষে ২০০৯ সালে ঢাকা শিক্ষাবোর্ডের অনুমোদন লাভ এবং অনুমোদিত ১ম ব্যাচই এইচ.এস.সি পরীক্ষায় জেলায় কলেজগুলির মধ্যে ৫ম স্থান অর্জনে সাড়া পড়ে যায় – এরপর থেকে ক্রমেই সাফল্যের একেক ধাপ অতিক্রম করতে করতে এখন জেলার অন্যতম শ্রেষ্ঠ প্রতিষ্ঠানের নাম ‘সৃষ্টি কলেজ অব টাঙ্গাইল’। শিক্ষায়তনটি পূর্ণাঙ্গ উচ্চমাধ্যমিক বিদ্যাপীঠ; এখানে বিজ্ঞান, ব্যবসায়শিক্ষা ও মানবিক শাখারই শিক্ষাদানের ব্যবস্থা আছে। আবাসিক ও অনাবাসিক দুইভাবেই শিক্ষার্থী ভর্তির সুযোগ রয়েছে।

একাডেমিক পাঠদান পদ্ধতি

  • থিউরিটিক্যাল ও প্র্যাকটিক্যাল ক্লাস : সপ্তাহে ৬ দিন ৭টি করে থিউরিটিক্যাল ক্লাস ও ৪টি প্রাকটিক্যাল ক্লাস নেওয়া হয়।

  • ক্লাস টেস্ট : নিয়মিত ক্লাস টেস্ট নেয়া (MCQ) হয়, হয় যা শিক্ষার্থীদের যোগ্য হিসেবে গড়ে তুলতে সাহায্য করে।

  • সহশিক্ষা : শিক্ষাসফর, ক্রিকেট, ফুটবল, ডিবেট ক্লাব, বিজ্ঞান/গণিত/অলিম্পিয়ার্ড ও  ভাষা-প্রতিযোগ-এ অংশগ্রহনের ব্যবস্থা।
  • পড়া  আদায় পদ্ধতি : শুধু পড়ানোই নয়, পড়া আদায় করা হয় সপ্তাহের ৬ দিনই। তাই প্রাইভেট পড়তে হয় না ।
  • টিউটোরিয়াল পরীক্ষা :প্রতি মাসে প্রতিটি বিষয়ে ২টি টিউটোরিয়াল পরীক্ষা নেয়া হয়, যার মার্কস সেমিস্টারের ফলাফলের সাথে যুক্ত করা হয় ।
  • ব্যাচ : ছেলে, মেয়ে, ও  আবাসিক শিক্ষার্থীদের পৃথক পৃথক ব্যাচে পড়ানো হয়।
  • সেমিষ্টার পরীক্ষা : প্রতিটি শিক্ষাবর্ষে ৩টি সেমিস্টার পরীক্ষা নেয়া হয়।

বিশেষ দিকসমূহ

  • মাল্টিমিডিয়া ক্লাস : আধুনিক বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে Projector এ Video Clips এর সাহায্যে মাল্টিমিডিয়া ক্লাস নেয়া হয়।
  • Online Software (SMS) পদ্ধতি : অভিভাবকদের সাথে যোগাযোগের জন্য রয়েছে Online Software (SMS) পদ্ধতি; যার সাহায্য প্রতিদিনের উপস্থিতি ও পরীক্ষার ফলাফল জানানো হয় এবং CC ক্যামেরার মাধ্যমে সার্বক্ষণিক মনিটরিং করা হয় ।
  • Extra Care : বুয়েট/মেডিকেল/বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষার আদলে নিয়মিত পরীক্ষা গ্রহণ করা হয় ।
  • Parents & Teachers Association(PTA) : মান উন্নয়নে অভিমত গ্রহণের জন্য রয়েছে সক্রিয়  PTA. 

  • Teachers & Students Association (TSA) : শিক্ষার্থীদের দক্ষতা বাড়াতে এবং শিক্ষকদের সেবা মুল্যায়নে কাজ করে   TSA.

  • প্রতি শুক্রবার আউটডোর গেমস, ঐতিহাসিক স্থান ও পার্কে বেড়ানোর ব্যবস্থা।
  • সিসি ক্যামেরা, নিরাপত্তা রক্ষী দ্বারা নিরাপত্তা ও লিফটের ব্যবস্থা।

আবাসিক ব্যবস্থাপনা

  • আবাসিক ভবন : আধুনিক ও নানাবিধ সুবিধা সংবলিত ‘ক্যাম্পাস ভবন’ ছাড়াও পাশেই রয়েছে একাধিক আবাসিক ভবন।
  • সার্বক্ষণিক তদারকি : অভিজ্ঞ আবাসিক প্রধান এবং আবাসিক সুপার দ্বারা সার্বক্ষণিক আবাসিক ব্যবস্থাপনার তদারকি করা হয়।
  • অভিজ্ঞ আবাসিক শিক্ষক : প্রতি ১৫ জন শিক্ষার্থীর জন্য রয়েছে ১ জন করে সার্বক্ষণিক অভিজ্ঞ আবাসিক শিক্ষক, যিনি কলেজের পড়া Complete করিয়ে /বুঝিয়ে  ক্লাসে পাঠানোর ব্যবস্থা করেন।
  •  যোগাযোগ ব্যবস্থা : অভিভাবকগণ আবাসিক শিক্ষক/শ্রেণি পরিচালককে ফোন করে নিজ সন্তানের খোঁজ নিতে পারেন।
  • বিশেষ ব্যবস্থা : আবাসিকে রয়েছে সার্বক্ষণিক নিরাপত্তা প্রহরী, সিসি ক্যামেরা, অগ্নিনির্বাপক যন্ত্র, বিশুদ্ধ খাবার পানি ও ফাস্ট এইড এর ব্যবস্থা ।

যোগাযোগ

সৃষ্টি ভবন, সুপারিবাগান রোড, বিশ্বাস বেতকা, টাঙ্গাইল।
০১৯২৬ ৯৭১১০৪, ০১৭১২ ২৯৭২১৭
sct@sristy.edu.bd

Call Now Button